যে ব্যক্তি বিয়ে করলো সে তার অর্ধেক দ্বীন পূর্ণ  করে ফেললো। বাকি অর্ধেকের জন্য সে আল্লাহকে ভয় করুক।

বায়হাকী, শু’আবুল ঈমান – ৫৪৮৬

ইসলামে বিবাহের গুরুত্ব

বিবাহ মানবজীবনের এক অপরিহার্য অংশ। মানব প্রজন্মের সুরক্ষা, সুষ্ঠ ও সুস্থ পরিবার গঠন এবং সামাজিক শান্তি-শৃংখলার জন্য বিবাহ এক নির্বিকল্প ব্যবস্থা। সমাজের একক হচ্ছে পরিবার। বিবাহের মাধ্যমেই এই পরিবারের ভিত স্থাপিত হয় এবং তা সম্প্রসারিত হয়। ব্যক্তিজীবনের শৃংখলা, ব্যক্তির মানসিক ও দৈহিক সুস্থতা এবং ধৈর্য, সাহসিকতা, সহমর্মিতা প্রভৃতি গুণাবলীসহ তার সুপ্ত প্রতিভার বিকাশসাধনে বিবাহের ভূমিকা অভাবনীয়। সুতরাং বিবাহ ইসলামের অন্যতম প্রধান সামাজিক বিধান এবং মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর এক গুরুত্বপূর্ণ সুন্নত। ইসলামে বিবাহকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব সহকারের দেখা হয়েছে।

মহান আল্লাহ তায়ালা বলেন, “আর তােমরা তােমাদের মধ্যকার অবিবাহিত নারী-পুরুষ ও সৎকর্মশীল দাস দাসীদের বিবাহ দাও। তারা অভাবী হলে আল্লাহ নিজ অনুগ্রহে তাদেরকে অভাবমুক্ত করে দেবেন। আল্লাহ প্রাচুর্যময় ও মহাজ্ঞানী।” – (সূরা নূর – ৩২)।

আল্লাহ তায়ালা অন্য আয়াতে বলেন – “আর তাঁর নিদর্শনাবলীর মধ্যে রয়েছে যে, তিনি তােমাদের জন্য তােমাদের থেকেই স্ত্রীদের সৃষ্টি করেছেন, যাতে তােমরা তাদের কাছে প্রশান্তি পাও। আর তিনি তােমাদের মধ্যে ভালবাসা ও দয়া সৃষ্টি করেছেন। নিশ্চয় এর মধ্যে নিদর্শনাবলী রয়েছে সে কওমের জন্য, যারা চিন্তা করে।” -(সূরা রূম: ২১)

বিয়ের গুরুত্ব সম্পর্কে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে কিছু হাদীস –

 “বিবাহ করা আমার সুন্নাত। যে আমার সুন্নাত অনুসরণ করলাে না,সে আমার দলভুক্ত নয়।তােমরা বিয়ে করাে,কেননা (হাশরে) আমি তােমাদের নিয়ে অন্যান্য উম্মাতের উপর গর্ব করবাে।” (ইবনু মাজাহ – ১৮৪৬)

“দু’জনের পারস্পরিক ভালবাসার জন্য বিবাহের মত আর কিছু নেই।” (ইবনু মাজাহ – ১৮৪৭)

হে যুবক সমাজ! তােমাদের মধ্যে যে বিয়ে করার সামর্থ রাখে, সে যেন বিয়ে করে। কেননা বিয়ে দৃষ্টি ও লজ্জাস্থান হিফাযাতের জন্য সবচেয়ে বেশি সহায়ক। আর যে সামর্থ রাখে না সে যেন সওম পালন করে, কেননা সওম যৌন উত্তেজনা প্রশমনকারী।” (মুসলিম – ৩৪৬৪)

তিন ব্যক্তিকে সাহায্য করা আল্লাহর দায়িত্ব। আল্লাহর পথের মুজাহিদ, যে ধার গ্রহীতা তা পরিশােধের চেষ্টা করে এবং যে ব্যক্তি সততা বজায় রাখার জন্য (চরিত্র হিফাযাতের জন্য) বিয়ে করে।” (তিরমিযী ১৬৫৫) 

জীবনসঙ্গী নির্বাচনে ইসলামের নির্দেশনা

পাত্র-পাত্রী নির্বাচন খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। যে মানুষটির সাথে সারা জীবন অতিবাহিত করতে হবে সেই মানুষটির চারিত্রিক ও নৈতিক বৈশিষ্ট্য তার জীবনসঙ্গীর উপর অনেক প্রভাব বিস্তার করে।

এ ব্যাপারে কয়েকটি হাদিস উল্লেখযোগ্য –

যার দ্বীনদারী ও চরিত্রে তোমরা সন্তুষ্ট, এমন কেউ বিবাহের প্রস্তাব দিলে তার সাথে তোমরা বিবাহ সম্পন্ন কর। তা না করলে পৃথিবীতে ফিৎনা দেখা দেবে ও ব্যাপক ফ্যাসাদ ছড়িয়ে পড়বে।’ (তিরমিযী: ১০৮৪)

নারীকে বিবাহ করা হয় চারটি জিনিস দেখে। তার সম্পদ দেখে, বংশমর্যাদা দেখে, রূপ দেখে এবং দ্বীনদারী দেখে। হে মুমিন! তুমি দ্বীনদার নারী বিবাহ করে ধন্য হয়ে যাও।’ (বুখারী : ৫০৯০ )

সমগ্র দুনিয়াটাই সম্পদ। এর মধ্যে সবচাইতে উত্তম সম্পদ হলাে পরহেযগার স্ত্রী। “(মুসলিম – ৩৭১৬)

তোমরা নারীদের (কেবল) রূপ দেখে বিবাহ করো না। হতে পারে রূপই তাদের বরবাদ করে দেবে। তাদের অর্থ-সম্পদ দেখেও বিবাহ করো না, হতে পারে অর্থ-সম্পদ তাকে উদ্ধত করে তুলবে। বরং দ্বীন দেখেই তাদের বিবাহ কর। একজন নাক-কান-কাটা অসুন্দর দাসীও (রূপসী ধনবতী স্বাধীন নারী অপেক্ষা) শ্রেয়, যদি সে দ্বীনদার হয়। “(ইবনে মাজাহ)

উপরিউক্ত হাদিস সমূহের শিক্ষা হল, পাত্র-পাত্রী নির্বাচনে দ্বীনদারী ও সচ্চরিত্রকে সর্বাগ্রে রাখতে হবে। সৌন্দর্য, অর্থ-সম্পদ ও বংশীয় সমতাও বিচার্য বটে, কিন্তু সবই দ্বীনদারীর পরবর্তী স্তরে। দ্বীনদারী ও চরিত্র সন্তোষজনক হলে বাকিগুলোতে ছাড় দেওয়া যায়, কিন্তু বাকিগুলো যতই আকর্ষণীয় হোক, তার খাতিরে দ্বীনদারীতে ছাড় দেওয়ার অবকাশ নেই। আর যদি দ্বীনদারীর সাথে অন্যগুলোও মিলে যায়, সে অতি সুন্দর মিলন বটে, কিন্তু তা খুব সহজলভ্যও নয়। তাই সে রকম আশার ক্ষেত্রে মাত্রাজ্ঞানের পরিচয় দেওয়া জরুরি। একজন দ্বীনদার জীবনসঙ্গী আল্লাহর নৈকট্যে যেতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে, অন্যথায় দ্বীনের উপর অবিচল থাকা অনেক কঠিন হয়ে যায়। তাই ইসলামে পাত্র-পাত্রী নির্বাচনে দ্বীনদারীকে প্রাধান্য দেয়ার নির্দেশনা পাওয়া যায়। 

বিয়েতে বর্জনীয় কাজ

বিয়ে একটি নতুন জীবনের সূচনা।আর সূচনাটাই যদি গোনাহ দিয়ে শুরু হয় তা খুব দুঃখজনক।অপরপক্ষে এই পবিত্র সম্পর্কের সূচনা যদি সুন্নাহ মেনে হয় তাহলে তার বরকত সারা জীবন পাওয়া যাবে ইন শা আল্লাহ। বর্তমানে আমাদের সমাজে বিয়েতে অনেক ইসলাম বিরোধী গোনাহের কাজ প্রচলিত আছে। আমাদের উচিত এসব কাজ বর্জন করা।

পাত্র পক্ষের পুরুষদের পাত্রী দেখানোঃ পাত্রী দেখার সময় পাত্রপক্ষের অনেক পুরুষ পাত্রী দেখতে আসে এবং সবাই মিলেই পাত্রীকে দেখে।যা ইসলাম সমর্থন করে না।পাত্রীকে শুধুই পাত্র এবং পাত্রের নিকট মহিলারা দেখতে পারবে।অন্য কোন পুরুষ দেখলে তা গোনাহ হবে।

বিয়ের আগেই পাত্র-পাত্রীর যোগাযোগঃ বিয়ে ঠিক হয়ে গেলে অনেক পাত্র-পাত্রী ফোনে বা বাস্তবে দেখা করে নিজেদের সাথে পরিচয়ের জন্য কথা বলে।বিয়ের আগে সব এসব দেখা ও কথা বলা জায়েজ হবে না। বিয়ের পর থেকেই এসব হালাল হবে।

গায়ে হলুদঃ গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানে হারাম গান বাজনা,বেপর্দা মেলামেশা হয়ে থাকে ।যা ইসলাম সমর্থন করে না।গায়ে হলুদ ইসলামী সংস্কৃতি নয়।অনেক অঞ্চলে এই দিনে পাত্রকে তার ভাবীরা গোসল দেয়ার প্রচলন আছে,যা অত্যন্ত গর্হিত কাজ।

বিয়েতে বেপর্দার সয়লাবঃ বিয়ের অনুষ্ঠানে নারীরা পর্দা রক্ষা না করেই অনুষ্ঠানগুলোতে অবাধ বিচরণ করে।যা গোনাহের কাজ।

বিয়ে বাড়িতে গানবাজনাঃ বিয়ে একটি ইবাদাত।অথচ বিয়ে উপলক্ষে অশ্লীল গানবাজনার প্রচলন অত্যন্ত খারাপ একটি কাজ।

যৌতুকঃ ইসলামে যৌতুক নেয়া জঘন্যতম কাজ।বর্তমানে সরাসরি বা আকার ইঙ্গিতেও যৌতুক দাবী করা হয়।যা ইসলামে সরাসরি হারাম ও জুলুম।

উকিল বাবা/পিতাঃ বিয়েতে একজনকে উকিল পিতা বানানো হয় এবং বিয়ের পরে এটিকে একটি সম্পর্কের মত করে দেখা হয়।অথচ ইসলাম এর অনুমোদন দেয় না।এগুলো সামাজিক কুপ্রথা।

ছেলেকে সোনার উপহারঃ অনেক পাত্রীপক্ষ পাত্রকে বিয়ের দিন সোনার আংটি বা চেইন উপহার দিয়ে বিয়ে বাড়িতে ঢোকায়।অথচ পুরুষের জন্য সোনা ব্যবহার হারাম।

শ্যালিকার হাত ধোয়ানোঃ অনেক বিয়ে বাড়িতে পাত্রকে তার শ্যালিকার হাত ধোয়ানোর প্রচলন আছে।অথচ শ্যালিকার জন্য বোনের স্বামীর সাথে পর্দা করার বিধান আছে।তাই এটি ইসলাম বিরোধী কাজ।

পায়ে ধরে সালামঃ ইসলামে পায়ে ধরে সালাম দেয়ার বিধান নেই।বরং পায়ে ধরে সালাম দেয়া অনেক ক্ষেত্রেই সিজদার মত হয়ে যায়।তাই এটি পরিত্যাজ্য।

মুশরিকদের অনুকরণঃ অনেক অঞ্চলেই নববধুকে ঘরে ঢোকানোর সময় কুলাতে দুর্বা ঘাস ,লতাপাতা,হলুদ,মেহদী,তেল,আগুনের বাতাস দেয়া হয়।যা সরাসরি মুশরিকদের অনুকরণ।এসব সম্পূর্ণ পরিত্যাজ্য।

এরকম আরও অনেক ইসলাম বিরোধী কুপ্রথা ও গোনাহের কাজের মাধ্যমে একটি বিয়ে সম্পন্ন হয়।সম্পর্কের সূচনাই যদি গোনাহ দিয়ে হয় তাহলে সারাজীবন দাম্পত্ত জীবনে বরকত কমার সম্ভাবনা থাকে।তাই আমাদের উচিত এসব হারাম ও কুপ্রথা পরিত্যাগ করে সুন্নাহ মোতাবেক বিয়ের অনুষ্ঠান করা।

SIGN INTO YOUR ACCOUNT CREATE NEW ACCOUNT

 
×
 
×
FORGOT YOUR DETAILS?
×

Go up